নতুন বছরটি সফল করে তুলতে পারেন যেভাবে……

অতঃপর ২০২২ সাল শেষ। নতুন বছর শুরু হতে চলেছে। পুরাতন বছরের শত ব্যর্থতা, তিক্ততা ঝেড়ে ফেলতে, নতুনভাবে জীবনে সফলতা আনতে কাজ শুরু করুন এখন থেকেই। অনেকেই আমাকে ইনবক্সে জানিয়েছেন পরামর্শ দেয়ার জন্য। নিজের ব্যক্তিগত উপলব্ধির জায়গা থেকে তাই আপনাদেরকে কিছু জানাতে চাই। নতুন বছরে নিজেকে এগিয়ে নিতে যা যা করবেন-

১। সবসময়ই সৃষ্টিকর্তাকে স্মরণ করবেন। ইতিবাচক থাকবেন। ইতিবাচক চিন্তাকে নিজের শক্তি বানাবেন। সকল পরিস্থিতিতে আল্লাহকে স্মরণে আনবেন। ভালো সবকিছুর শুকরিয়া করবেন, খারাপ কিছু ঘটলে ধৈর্য্য ধরবেন। নিশ্চয়ই সবকিছু ঘটে আল্লাহর ইশারায়। সুতরাং ভয় পাবেন না। প্রচন্ড দৃঢ় মনোবল নিয়ে নিজের সময় কাটাবেন।

২। নিজেকে ভালোবাসবেন। নিজের শরীর ও মনের খেয়াল রাখবেন। ভালো কাপড় পরবেন, ভালো খাবেন, ভালো বই পড়বেন, পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমাবেন। এক কথায় নিজের যত্নের কোনো ত্রুটি রাখবেন না। সবার আগে নিজেকে প্রাধান্য দেবেন। সুখী করার চেষ্টা করবেন। অবশ্যই হালাল উপায়ে। খারাপ/স্বার্থপর হবেন না। আপনার জ্ঞান বাড়াবেন। প্রতিনিয়তই নিজেকে ছাড়িয়ে যাবেন। নিত্য নতুন স্কিল শিখবেন। আপনার পড়াশোনা বা কাজ রিলেটেড যত স্কিল আছে সব শিখতে চেষ্টা করবেন। এছাড়াও আপনাকে সফল হতে আদার্স কোনো স্কিল থাকলে, সেগুলোও শিখতে সময় দেবেন। অযথা অকাজ করে সময় নষ্ট করবেন না। মনে রাখবেন, সময় পৃথিবীর সবচাইতে মূল্যবান জিনিস!

৩। নিজের দেয়া কথা রাখবেন। জীবনের উদ্দেশ্য খুঁজে নেবেন প্রার্থণা ও মানুষের হক আদায় করার মধ্যে। অর্থ আয় করার উৎস খুঁজবেন। কাজ করবেন। কাজকে ভালোবাসবেন। কাজের মধ্যে আনন্দ খুঁজে নেবেন। টাকা আয় করবেন। টাকা আয়ের একাধিক উৎস বানাতে পারলে উত্তম হয়। অবশ্যই হালাল পন্থায়। আর হ্যা, টাকা আয় করাকে নিজের জীবনের সবকিছু বানিয়ে ফেলবেন না। সবসময়ই ভালো কাজে টাকা ব্যয় করবেন। সকল ভালো কাজে। এটা একইসাথে আপনার টাকার সদ্ব্যবহার নিশ্চিত করে আপনাকে পরকালীন সফলতা এনে দেবে এবং আপনাকে আরো সুখী করবে। এছাড়াও টাকা দিয়ে আপনার স্বপ্ন পূরণ করার থাকলে করে নেবেন। মনে রাখবেন, জীবন ছোট। যা করার এখনই করে নিন।

৪। সোশ্যাল মিডিয়ায় আসক্ত হবেন না। নিজের প্রয়োজনে সীমিত পরিমাণ ব্যবহার করুন। ভালো কিছু দেখুন, পড়ুন, শুনুন। সব ভালো কাজ শেয়ার করুন। আজেবাজে কোনকিছু শেয়ার দেবেন না। আপনার রিয়েকশন, কমেন্ট, শেয়ার সবকিছুই ভালো কনটেন্ট, ভালো মানুষ ও তাদের কাজকে প্রেরণা দেয়ার জন্য ব্যবহার করুন। মনে রাখবেন, সোশ্যাল মিডিয়াকে যত নিয়ন্ত্রিত রাখতে পারবেন, আপনার জীবনে সফলতা তত বেশিই আসবে। আর নয়তো বিশৃঙ্খলায় পড়ে যাবেন। তাছাড়া নিজের মূল্যবান টাকা+সময় খরচ করে কনটেন্ট কনজুমার যেহেতু হবেনই, তাহলে কেন ভালো কিছু দেখবেন না, ভালো কিছু পড়বেন না, আর ভালো কিছু শুনবেন না? আশা করি আপনি বোকা নন। আজেবাজে কনটেন্ট দেখা, শোনা, পড়া এবং ছড়িয়ে দেয়ার মতো মূর্খ অন্তত হবেন না।

৫। পরিবারকে ভালোবাসবেন। সবার সাথে সম্পর্ক ভালো রাখা আবশ্যক। বিশেষ করে বাবা-মা’কে ভালোবাসবেন। তাদের যত্ন নেবেন। সুখ ছাড়া তাদেরকে কখনোই দুঃখ দেবেন না! খবরদার বন্ধু আমার, বাবা-মা’কে আঘাত দেবেন না। না, না, এবং না। টক্সিক মানুষের থেকে একটু দূরে থাকবেন, যদি তাদেরকে ঠিক করতে না পারেন আপনি। পরিবারের সবার সাথে কমিউনিকেশন জোরালো করবেন। ছোট ছোট সুখ নিশ্চিত করবেন। সারপ্রাইজ দেবেন। একসাথে হাসি আনন্দে দিন কাটাবেন। সবাইকে বুঝিয়ে দেবেন আপনি তাদেরকে কতটুকু ভালোবাসেন! দিনশেষে ভালোবাসা প্রকাশ না করা মানে ‘ভালো না বাসা’। ভালোবাসা মুখে নয়, কাজে প্রমাণিত হয়।

৬। নিজের ও পরিবারের বাইরেও পৃথিবীর সকল ভালো মানুষকে ভালোবাসবেন (খারাপকে ভালো করার চেষ্টা করবেন, না পারলে ঘৃণা বজায় রাখবেন)। আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী সবাইকে সাহায্য করবেন। কথা, কাজ, অর্থ দিয়ে মানুষকে বড় হতে সাহায্য করবেন। ভালো থাকতে দেবেন। হাসি আনন্দের মুহূর্ত তৈরি করবেন সবার সাথে। দেখা হলে হেসে ভালোমন্দ জিজ্ঞেস করা, একটু হাসিঠাট্টা করা এক্ষেত্রে বেশ এফেক্টিভ ব্যাপার। দেখবেন ভালো লাগবে। মানুষও খুশি থাকবে আপনার ওপর। আপনার আয়ের একটা অংশ রেখে দেবেন দান করার জন্য। সুবিধাবঞ্চিত, অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াবেন সবসময়ই। মনে রাখবেন, আল্লাহর প্রতিনিধি হিসেবে মানবকল্যাণের দায়িত্ব স্বাভাবিকভাবেই আপনার ওপর বর্তায়। আপনি সুখী হয়ে সবাইকে ভুলে যাবেন, দুর্ব্যবহার করবেন, এমনটা যেন ভুলেও না হয়!

৭। সময় পেলেই ভ্রমণ করবেন। প্রকৃতির সান্নিধ্যে যাবেন। নতুন নতুন জায়গা অন্বেষণ করবেন। জার্নাল লিখবেন। গবেষণা করবেন। মানবজাতিকে আরেকটু সুশৃঙ্খল ও সুখী জীবন দানের জন্য কী কী করা যেতে পারে, তা নিয়ে ভাববেন। আদর্শবান হবেন। কারো ক্ষতি করবেন না, যদি উপকার করতে না পারেন। সমালোচনা না করে নিজের কাজে ব্যস্ত থাকবেন। সম্ভব হলে সমস্যার সমাধান দিতে চেষ্টা করবেন। তারপরও যদি সমালোচনা করতেই হয়, তাহলে গঠনমূলক সমালোচনা করবেন। উৎকৃষ্ট বিনোদন গ্রহণ করবেন। দেখবেন জীবন সুন্দর!

সব কথার এক কথা- প্রত্যেক প্রাণীকেই মৃত্যুর স্বাদ ভোগ করতে হবে। এটাই চিরন্তন সত্য। এই কথাটি সবসময়ই মনে রাখবেন। এটা মনে রাখলেই আপনার জীবন সুন্দর করে তোলার জন্য যথেষ্ট! মৃত্যুর কথা মনে করলে আপনার কোনো হতাশা থাকবে না, খারাপ কাজের কথা মনে আসবে না, প্রার্থণায় নিমগ্ন হতে চাইবে মন। সর্বোপরি নিজেকে ও অন্য সবাইকে ভালোবাসার মধ্যে দিয়ে আপনি একটি সুখী জীবন কাটাতে সক্ষম হবেন। আশা করি সব বুঝতে পেরেছেন।

আপনার জীবন সুন্দর হোক। নতুন বছরে আপনি হয়ে উঠুন আরো সুখী, সমৃদ্ধ, সফল একজন মানুষ। শুভকামনা বন্ধু!

© ত্বাইরান আবির- লেখক, অনুবাদক


Posted

in

by

Tags:

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *