ব্যবসায়ী জেরির সফলতার পেছনের রহস্য

জেরি গ্লাডস্টোন একজন ব্যবসায়ী। ১৯৮৬ সালে তিনি তার ব্যবসা শুরু করেন। প্রথমে তিনি ‘আমেরিকান রয়াল আর্ট ‘ নামে ব্যবসা শুরু করার মাধ্যমে তার সংগ্রহে থাকা নানা জিনিসপত্র বিক্রি শুরু করেন। কিন্তু এক বছর পর তিনি আর্ট বিক্রি করার জন্য প্রস্তুত হন। যেই ভাবা সেই কাজ। এই
সিদ্ধান্ত নেয়ার পর জেরি এনিমেশন ব্যবসা চালুর জন্য ওয়ার্নার ব্রাদার্স, হান্না বারবেরা এবং বাকি ছোট ছােট স্টুডিওর কাছ থেকে লাইসেন্স সংগ্রহ করেন। এরপর কিছুদিন তার ব্যবসা স্টুডিওগুলাের আর্ট বিক্রি করেই চলতে থাকে। কিন্তু হঠাৎ তার মনে হয় ব্যবসায়িক প্রসার ও সফলতা লাভের জন্য তাকে ডিজনি আর্ট বিক্রি করতে হবে। এই উদ্দেশ্যে পরবর্তী তিন বছর জেরি একাধারে ডিজনি হেডকোয়ার্টারে চিঠি লিখেছিল। কিন্তু প্রতিবারই ডিজনি থেকে একটা উত্তরই এসেছিল- ‘না’।
কিন্তু জেরি তাতেও ক্ষান্ত হয়ে কাজ বন্ধ করে দেননি। তিনি একের পর এক ডিজনির নির্বাহী কর্মকর্তাদের সাথে যােগাযােগ করতে শুরু করেন। অবশেষে এক কর্মকর্তা জেরিকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করে। তিনি তখন স্লিপিং বিউটি, স্নো হােয়াইট
থেকে ইভিল কুইন এবং ক্রু ডেভিল ডালম্যাশন বিক্রির লাইসেন্সের জন্য অনুমতি চান। ‘আপনি কখনােই ডিজনির লাইসেন্স পাবেন না’- জবাবে এটাই বলেছিলেন উক্ত কর্মকর্তা। এসব শুনলে আপনি হাল ধরে থাকতে পারতেন, হয়তো এপ্রুভ্যাল পাওয়ার জন্য নিশ্চিত অপেক্ষা করতে পারতেন। কিন্তু লাইসেন্স না পাওয়ার সম্ভাবনাই ছিলো পঁচানব্বই ভাগ। বেশিরভাগ মানুষই হাল ছেড়ে দিতো এমন কথা শুনলে। কিন্তু জেরি হাল ছাড়েননি। ডিজনির ওপরস্থা কর্মকর্তাদের দ্বারা এভাবেই প্রত্যাখ্যাত হয়ে দিন চলতে থাকলাে। প্রতিবার প্রত্যাখ্যাত হবার পরও জেরি ইতিবাচক চিন্তা বজায় রেখেছিলেন নিজের মাঝে। এরপর এক কর্মকর্তা হয়তাে জেরির ত্যক্তবিরক্ত কারবার থেকে মুক্তি লাভের জন্যই তাকে বলেছিলেন- ‘বেশ, আমরা আপনাকে ডিজনির আর্ট বিক্রির লাইসেন্স দিতে রাজি। কিন্তু ডিজনি আর্টওয়ার্কের গ্যালারি মিনেসােটা কিংবা ম্যাসাচুসেটসের কোন এক
জায়গায় হতে হবে। এসব অঞ্চলের বাইরে আমরা অনুমােদন দিতে আগ্রহী নই।’ আপাতত অনুমতি পাওয়া হলেও বিষয়টি জেরি গ্লাডস্টোনের জন্য খুব জটিল হয়ে গেলো। তার ব্যবসা ছিল নিউইয়র্কে। আর তিনি এত দূরবর্তী এলাকায় ব্যবসা করতে চাচ্ছিলেন না। অনুমান করুন তাে, এমতাবস্থায় কী করবেন তিনি? তাহলে শুনুন, আমিই বলছি- ডিজনি কর্মকর্তার কথা শোনার পরের দিনই জেরি বিমানে করে বােস্টন চলে গিয়েছিলেন। এবং ঐ দিনই শেষবেলায় বােস্টনের নিউবিউরি স্ট্রিটে একটা জমি লিজ নেন ব্যবসা করার জন্য! অতঃপর জেরি ঐ কর্মকর্তাকে ফোন করে জানান যে, তিনি ম্যাসাচুসেটসেই একটি জায়গার ব্যবস্থা করেছেন আর্টওয়ার্ক গ্যালারি স্থাপনের জন্য। এটা শুনে
উক্ত কর্মকর্তা হেসে ফেললেন। বললেন- ‘আপনি যদি মাত্র একদিনের ভেতরই বিমানে চড়ে বােস্টনে এসে জায়গা ঠিক করে নিতে পারেন, তাহলে আমরাও আপনাকে ডিজনির প্রােগ্রামে শামিল করতে বাধ্য। শুভকামনা আপনার জন্য।’

এভাবেই ডিজনির আর্টওয়ার্ক বিক্রির জন্য অবশেষে চূড়ান্ত অনুমােদন পান জেরি গ্লাডস্টোন। এরপর কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই বােস্টনে তার গ্যালারি উদ্বোধন করেন তিনি। এক বছরের মধ্যেই ডিজনি কর্তৃপক্ষ জেরিকে তার নিউইয়র্ক স্টোরেও
আর্টওয়ার্ক বিক্রি করার অনুমতি দেয়। সেই থেকে আজ দশ বছর হতে চললাে ডিজনির সাথে জেরি গ্লাডস্টোনের ব্যবসা চলছে। এত বছরে তিনি মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার আর্টওয়ার্ক বিক্রি করেছেন এবং এই মুহূর্তে বিশ্বের সবচাইতে বৃহৎ ডিজনি
এনিমেশন আর্ট ডিলার হচ্ছেন জেরি গ্লাডস্টোন! অতএব, অঙ্গীকার নিয়ে কথা বলুন। চরম প্রত্যাখ্যানের সময়েও নিজের মাঝে ইতিবাচক চিন্তা ধরে রাখুন! জেরি ডিজনির লাইসেন্সের জন্য যা প্রয়ােজন সবই করেছেন। তাকে গিয়ে জিজ্ঞেস করুন তার সফলতার নেপথ্যের কাহিনী কী? নিশ্চিতভাবেই তিনি আপনাকে বলবেন- ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিই সব!

 

© Tayran Abir


Posted

in

by

Tags:

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *