নতুন কাজে ভয় পেলে যা করবেন……

আমরা অনেকেই নিজের স্বপ্নের কোন কাজ কিংবা নতুন কোন কাজ করতে ভয় পেয়ে থাকি। এটা স্বাভাবিক। এ ব্যাপারে র‍্যাফ ওয়াল্ডো এমারসনের একটি উপদেশ আমি সবসময়ই মনে রাখি এবং এটা হয়তো আপনার জীবনকেও বদলে দিতে পারে। তিনি বলেছিলেন—’যে কাজটি আপনি ভয় পান, সেটাই করুন। নিশ্চিত থাকুন ভয় চলে যাবে।’ আমাদের সবার জন্যই কথাটি নিশ্চয়ই খুব ইতিবাচক। তবুও এমন অনেক মানুষ রয়েছে যারা খুব ভয় পায়। এই ভয়ের দরুন সুনির্দিষ্ট কোন কাজে অংশগ্রহণ করে না। এ ব্যাপারে ওপরে আমার বলা কথাগুলো মনে করুন। আমি আশাবাদী তা আপনার জন্য সহায়ক হবে। দিনশেষে, যেকোন কাজে ভয় পাবার বিষয়টি আপনাকে কোন ফায়দা জোগায় না। এটা আপনার জীবনে কেবল হতাশা ও বিষাদ নিয়ে আসে। আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকেই আমি এটুকু আপনাদেরকে নিশ্চিত বলতে পারি। সত্যি বলতে, মনে ভয় কিংবা দুর্বলতা থাকা দোষের কিছু নয়। সফল ব্যক্তিদের মনেও ভয় ছিল। পার্থক্য হচ্ছে, তারা ভয়কে পাত্তা না দিয়ে কাজ করে গিয়েছে।

নতুন কাজটি খুব কঠিন মনে হতে পারে কখনো কখনো। কিন্তু একেবারেই অনিশ্চিত কিছু নয়। আমি বাজি ধরে বলতে পারি আপনি যদি একবার নিজের ভয়ের সম্মুখীন হন, তাহলে পরবর্তীতে সেটা চলে যাবে। আর আপনি সফল ব্যক্তিদের একজন হবেন নিশ্চিত। এবার একটা দুঃখজনক একটি ঘটনা আপনাদের সাথে শেয়ার করা যাক। ঘটনাটি মোটিভেশনাল বক্তা জেফ কেলারের। তিনি একবার তার বইয়ে লিখেছিলেন- ‘গত চৌদ্দ বছরে আমি আমেরিকার নানা প্রান্তে হাজার হাজার মানুষের সামনে প্রেজেন্টেশন সম্পন্ন করেছি। অনেক অনেক লোকের সাথে আমার দেখা হয়েছে। কিন্তু সত্যি বলতে তাদের মধ্যে একজনকেও পাইনি, যে কিনা নিজের মাঝে থাকা ভয় কিংবা স্নায়ুজনিত দুর্বলতা কাটিয়ে সাফল্য লাভ করেছে। একজনকেও পাইনি আমি! এটা খুব দুঃখজনক বটে। কেউ কেউ হয়তো নিজের ভয়ের বেড়াজাল ভেঙে কাজ শুরু করেছিল, কিন্তু পরবর্তীতে ফিরে এসেছে। এই হচ্ছে ঘটনা। কিন্তু আমি এমন বহু লোকের দেখা পেয়েছি, যারা ভয় পেয়ে নিজের স্বপ্নকে মরতে দিয়েছে।’

বার্ক হেজেস একটা কথা বলেছেন- ‘এমন ব্যক্তি হয়ো না, যাদের স্বপ্নের জায়গা দখল করে নেয় নিজের ব্যক্তিগত অনুশোচনাগুলো।’ তাই ভয় পাবেন না। কাজ করুন। নিজেকে বিস্তৃত করে নিন। সেইসাথে কমফোর্ট জোনকে প্রসারিত করুন। দেখবেন একদিন ভয় কেটে গেছে। একই কাজ পুনরায় চর্চার ফলে একসময় ওসব কাজ আপনার কাছে খুব পরিচিত মনে হবে। তারপর কী ঘটবে জানেন? একদিন যেসব কাজ আপনি ভয় পেতেন, সেসবই আপনার কমফোর্ট জোনের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবে! এছাড়াও নিজের কমফোর্ট জোনের বিস্তৃত ঘটলে আরেকটি ফায়দা পাওয়া সম্ভব। বোনাস হিসেবে আপনি অন্যান্য বিভিন্ন খাতে স্কিলড একজন ব্যক্তি হিসেবে নিজেকে দাঁড় করাতে পারবেন। আর সেসব ক্ষেত্রে কাজ করতে করতে একসময় নিজের ভেতর আত্মবিশ্বাস তৈরি হবে আপনার। এটাই সত্য! কিন্তু তা সত্ত্বেও, আপনি বাস্তব জীবনের বিভিন্ন জটিলতার সম্মুখীন না হলে নিজের কাজে পরিপূর্ণভাবে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারবেন না। সত্যি বলতে পৃথিবী কষ্ট ব্যতীত কাউকে পুরস্কৃত করে না। যেসব ব্যক্তিরা নিজেকে যাবতীয় ঝামেলা ও জটিলতা থেকে দূরে সরিয়ে রাখে, তারা কখনোই কিছু অর্জন করতে সমর্থ হয় না। তাই আপনাদের উচিত ইতিবাচক অবস্থান ধরে রেখে কাজ করা।

অতএব, নিজের ভয়কে জয় করুন। নিজের ভেতর অনুভব করুন দুর্দান্ত আত্মবিশ্বাস। তবেই আপনি পরিপূর্ণ এক জীবন পার করতে সক্ষম হবেন। তাই এখনই সিদ্ধান্ত নিন—কখনোই ভয় পাবেন না!

 

© Tayran Abir

[contact-form][contact-field label=”Name” type=”name” required=”true” /][contact-field label=”Email” type=”email” required=”true” /][contact-field label=”Website” type=”url” /][contact-field label=”Message” type=”textarea” /][/contact-form]


Posted

in

by

Tags:

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *