প্রাক্তন

প্রাক্তন। শব্দটার মাঝেই কেমন যেন একটা মায়া জড়িত, হারানোর বেদনা জড়িত। আর জড়িত একবুক হাহাকার। কেউ কি প্রাক্তন শব্দটির সংজ্ঞা বলতে পারবেন? এটা জিজ্ঞেস করলে হয়তো একেকজন একেক উত্তর দেবেন। কিন্তু একটা জায়গায় হয়তো সবার উত্তরই মিলে যাবে। আর তা হলো- শব্দটি শুনলেই বুকের ভেতরটা হুহু করে ওঠে। অবশ্য এই হাহাকার সৃষ্টি হবার জন্য প্রেমটাও হওয়া চাই গভীর। গভীর হবার পর বিচ্ছেদ হলে তবেই না ‘প্রাক্তন’ শব্দটাও সার্থকতায় রূপ নেবে!

জীবনে প্রায় সবাই ই কমবেশি প্রেমে পড়েছেন। সময়ের পালাবদলে হয়তো সেই প্রেমে বিচ্ছেদও হয়েছে। একবুক কষ্ট নিয়ে মেনে নিতে হয়েছে বাস্তবতা। চলে যেতে হয়েছে দূরে। তবুও কি দূরে যাওয়া হয়েছে? আসলেই কি দূরে যাওয়া হয়? না। কখনোই হয় না। কেননা, মস্তিষ্ক এত ঠুনকো নয়। স্মৃতি হাওয়াই মিঠাই নয় যে সাথে সাথে হারিয়ে যাবে। কল্পনায় আঁকা ভালোবাসা মানুষের মনে কল্পনার মতই রয়ে যায় আমৃত্যু। আর হঠাৎ যখন কল্পনার সেই রাজা/রানীর সাথে দেখা হয় তখন বুকে ঝড় আসে, চোখের কোণ বেয়ে ঝরে যায় ক’ফোটা অশ্রু। নির্মম বাস্তবতার কাছে পরাজয় তো ঘটে, কিন্তু ভুলে তো যাওয়া হয় না প্রেম, শেষ তো হয় না কিছুই। মনে তখন কবিগুরুর মতই প্রশ্ন জাগে-

‘আমাদের যে দিন গেছে? একেবারেই কি গেছে? কিছুই কি নেই বাকি?’

সত্যি বলতে শেষ হয়েও কিছু বিষয় শেষ হয় না আজীবন। প্রেম তার মধ্যে অন্যতম। পুরোনো প্রেম, পুরোনো মানুষ, ভুল বোঝাবুঝি কিংবা অন্যান্য কারণে মানবজীবনে প্রায়ই রচিত হয় বিচ্ছেদের কাহিনী। তাও গল্পটা শেষ হয়েও হয় না। এমনই এক প্রেক্ষাপট নিয়েই ‘প্রাক্তন’ চলচ্চিত্রটি।

শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় এবং নন্দিতা রায়ের যৌথ পরিচালনায় তৈরি এই চলচ্চিত্রটি মুক্তির পরপরই দর্শকদের মাঝে বেশ সাড়া ফেলে। সাংসারিক জীবনের টানাপোড়েনের ওপর ভিত্তি করে বয়ে চলা চলচ্চিত্রটির সুন্দর গল্পের স্ক্রিনপ্লে রাইটার ছিলেন স্বয়ং পরিচালক নন্দিতা রায়। এছাড়া কম বাজেটে দারুণ এক চলচ্চিত্র হচ্ছে ‘প্রাক্তন’। এই চলচ্চিত্রের গল্প সাধারণ মানুষের, এটি আপনার আমার গল্প। আমাদের সমাজে প্রতিনিয়ত ঘটতে থাকা কিছু বিষয়ের চলমান চিত্রই ‘প্রাক্তন’। যাইহোক, পুরো মুভিতেই সকলের অভিনয় ভালো ছিলো। গল্পের প্রবাহ ভালো ছিলো। আরো ছিলো আবেগ, করুণ বাস্তবতা, কলহের চিত্রায়ণের মিশেল। তাই দেরী না করে দেখা শুরু করুন ‘প্রাক্তন’। একটু হলেও মনটা কাঁদবে প্রাক্তন কারো জন্য, যাকে হয়তো আপনি আরেকটু চেষ্টা করলেই ধরে রাখতে পারতেন। তাই অনুরোধ থাকবে- নিজের বিপরীত মানুষটিকে ঠিকমতো বুঝতে চেষ্টা করুন, তাকে নিয়ে সুখী হোন। তা না করে যদি হারিয়ে ফেলেন, তাহলে একটু হলেও পুড়বেন একদিন। কেননা এরই নাম ‘প্রাক্তন’। হ্যাপি ওয়াচিং।

IMDB Rating- 7.6/10
Personal Rating- 8/10


Posted

in

by

Tags:

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *